উইঘুর মুসলিমদের নির্যাতনে চিনের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র, ইইউ, বৃটেন, কানাডার সমন্বিত নিষেধাজ্ঞা

চিনের জিনজিয়াং প্রদেশে মুসলিম উইঘুরদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য চীনা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সোমবার নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, বৃটেন এবং কানাডা।

বেইজিংয়ের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের অধীনে পশ্চিমাদের সংগঠিত এমন উদ্যোগ এটাই প্রথম। তবে বেইজিং এমন শাস্তিমূলক ব্যবস্থার তাৎক্ষণিক জবাব দিয়েছে । তারাও ঘোষণা দিয়েছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার। এর মধ্যে রয়েছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের আইনপ্রণেতা, কূটনীতিক, প্রতিষ্ঠান এবং পরিবার। চীনের সঙ্গে তাদের বাণিজ্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এতে বলা হয়েছে,পশ্চিমা সরকারগুলো উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় চীনে মুসলিম উইঘুরদের গণহারে বন্দি করে রাখার কারণে বেইজিংয়ের জবাবদিহিতা চায় তারা। এক্ষেত্রে গণহত্যা করছে চীন বলে অভিযোগ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে চীন এসব অভিযোগকে প্রত্যাখ্যান করেছে । এই সমন্বিত উদ্যোগকে চীনের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক যে লড়াই করছে তার প্রাথমিক ফল হিসেবে দেখা হচ্ছে ।

মুসলিম নির্যাতন 2
ছবি সংগৃহীত

চীন সংক্রান্ত ইস্যুতে নিয়মিত প্রতিদিন ইউরোপের সরকারগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সিনিয়র কর্মকর্তারা । তারা একে আখ্যায়িত করেছেন ‘ইউরোপ রোডশো’ হিসেবে ।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনিও ব্লিনকেন ব্রাসেলসে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও ন্যাটো মন্ত্রীদের বৈঠকের আগে বলেছেন, আন্তর্জাতিক নিন্দা বৃদ্ধির মধ্যেও চীন জিনজিয়াংয়ে গণহত্যা ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ অব্যাহত রেখেছে । চীন কর্তৃপক্ষ যে ধারাবাহিকভাবে, রাষ্ট্রের নেতৃত্বে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে তার ভুরি ভুরি তথ্যপ্রমাণ রয়েছে বলে জানিয়েছেন কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষজ্ঞরা বলেন, কমপক্ষে ১০ লাখ মুসলিমকে জিনজিয়াংয়ের বন্দিশিবিরে আটকে রাখা হয়েছে । তারা এবং পশ্চিমা রাজনীতিকরা এক্ষেত্রে চীনের বিরুদ্ধে নির্যাতন, জোরপূর্বক শ্রমে বাধ্য করা এবং বন্ধ্যাকরণের অভিযোগ তুলেছেন। তবে জবাবে চীন দাবি করে, এসব শিবিরে উগ্রপন্থিদের ভোকেশনাল প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এই শিক্ষা দরকারি।

কিন্তু ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সোমবার প্রথমেই চীনের চারজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে । চীনের নিরাপত্তা বিষয়ক একজন পরিচালকও ওই চার কর্মকর্তার মধ্যে রয়েছেন। বৃটেন ও কানাডাও একই সিদ্ধান্ত অনুমোদন করে।

যাদেরকে টার্গেট করে যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে তার মধ্যে রয়েছেন সিনজিয়াং পাবলিক সিকিউরিটি ব্যুরোর পরিচালক চেন মিঙ্গুও। এ তালিকায় ওই অঞ্চলের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা ওয়াং জুনঝেং আছেন । গত বছর সিনজিয়াংয়ের শীর্ষ কর্মকর্তা চেন কুয়াগুও’র বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট।

সোমবার পশ্চিমা মিত্ররা যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে তাতে তার নাম উল্লেখ নেই তাতে। বৃহত্তর রাজনৈতিক বিরোধ এড়ানোর চেষ্টা করা হয়েছে এক্ষেত্রে ।

ওদিকে অ্যান্টনি ব্লিনকেনের সঙ্গে যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন কানাডা ও বৃটেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। তারা বলেছেন, জিনজিয়াংয়ে বেইজিংয়ের নিষ্পেষণ বন্ধ করার দাবিতে তারা তিনজন ঐকবদ্ধ। ভয়াবহ নির্যাতন চলছে ওই অঞ্চলে।

স্যাটেলাইটে ধারণ করা ছবি আছে, প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষ্য আছে এবং চীন সরকারের নিজস্ব ডকুমেন্ট আছে। অন্যদিকে জাতিগত উইঘুর এবং জিনজিয়াংয়ে বসবাসরত মুসলিম সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে ভয়াবহ মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিশ্বাসযোগ্য ক্রমবর্ধমান রিপোর্টে উদ্বেগ প্রকাশ করে আলাদাভাবে বিবৃতি দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। একই সঙ্গে তারা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, বৃটেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের গৃহীত পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন

Reply