ভারতের মুসলিম গণহত্যায়- মুসলিম উম্মাহকে ঐক্যবদ্ধের ডাক জাকির নায়েকের

মালয়েশিয়ায় নির্বাসিত ভারতীয় নাগরিক ও জনপ্রিয় ধর্মীয় বক্তা জাকির নায়েক বলেছেন, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষের মধ্যে দিল্লিতে মুসলিমদের হত্যা করা হচ্ছে। বুধবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে দেয়া এক স্ট্যাটাসে একথা বলেন জাকির নায়েক।

ফেসবুকে দেয়া স্ট্যাটাসে জাকির নায়েক লিখেছেন, দিল্লিতে মুসলিমদের বিরুদ্ধে গণহত্যা চালানো হচ্ছে। শুধু তারা মুসলিম হওয়ার কারণে তাদেরকে হত্যা করা হচ্ছে। তাদের দোকান, বাড়িঘর লুট করে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। মসজিদ ভাংচুর করা হয়েছে।

কমপক্ষে ১৫ জন মুসলিমকে হত্যা করা হয়েছে। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন কমপক্ষে ১০০ জন। ভারতীয় মুসলিমদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় মদতপুষ্ট নিষ্পেষণ নতুন এক নিম্নতম পর্যায়ে পৌঁছেছে। এখনই কি সময় নয় আমাদের নির্যাতিত ভাই ও বোনদের পক্ষে কথা বলার জন্য আমাদেরকে একটি জাতি (উম্মাহ) হিসেবে ঐক্যবদ্ধ হওয়া?

আরো সংবাদ

ভারতে ‘মুসলিম হত্যা’ বন্ধের আহ্বান ডাকসু ভিপির

ভারতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধী আন্দোলনে সহিংস হামলা ও হয়রানির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ। এ সময় তারা ভারতে ‘মুসলাম হত্যা বন্ধেরও’ আহ্বান করেন।

বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাস বিরোধী রাজু ভাস্কর্যে পাদদেশে সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে তারা এই কথা বলেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে ‘ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্ট’ ও সিএএ বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীদের ওপর ‘হামলা ও হয়রানি’ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলে সংগঠনের নেতারা।

সমাবেশে ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর, সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন, ছাত্র পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হাসান, মুহাম্মদ রাশেদ খান, ঢাবি শাখার সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লা, মশিউরসহ শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, মোদির হাতে মুসলিমদের রক্ত লেগে আছে। জনগণের রক্ত লেগে আছে।

প্রসঙ্গত, ভারতের দিল্লিতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতার বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে পাল্টাপাল্টি সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত হয়েছেন শিশুসহ ২ শতাধিক।

সূত্রঃ www.bartabahok.net

Reply