তামিমের খারাপ খেলার কারণ জানালেন নিল ম্যাকেঞ্জি

সম্প্রতি টেস্ট ও ওয়ানডেতে ব্যাট হাতে রান পাচ্ছেন না তামিম ইকবাল। সোমবার সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে বাঁহাতি এই ওপেনারকে নিয়ে আলাদাভাবে কাজ করেছেন টাইগারদের ব্যাটিং কোচ নিল ম্যাকেঞ্জি -বিসিবি

দীর্ঘ সময় ধরে অফফর্মে রয়েছেন তামিম ইকবাল। দেশসেরা এই ওপেনারের খারাপ সময়ে কথা উঠছে তার দলে থাকার যোগ্যতা নিয়েও। টেস্ট, ওয়ানডে কিংবা টি২০ কোনো ফরম্যাটেই নিজেকে প্রমাণ করতে পারছেন না এই বাঁহাতি ওপেনার। ওয়ানডে ফরম্যাটে সবশেষ অর্ধশতকের দেখা পেয়েছেন ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। ওই ম্যাচে ৬২ রানের ইনিংস খেলার পর নিয়মিত ব্যর্থ তামিম ইকবাল।

বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ নিল ম্যাকেঞ্জি সোমবার বলেছেন, ‘বাংলাদেশে যে পরিমাণ সংবাদ মাধ্যমের চাপ তামিমের ব্যর্থতার এটাও কারণ হতে পারে। সে চাপে থাকছে এজন্যই। আমরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এত চাপ দিলে কঠিন হয়ে যায়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খুবই কঠিন।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের অনেক বড় আশার নাম ছিলেন তামিম। কিন্তু তার ব্যাট করেছে হতাশ। ৮ ম্যাচে ২৯.৩৭ গড়ে ২৩৫ রান করলেও তামিমের স্ট্রাইকরেট ছিল মাত্র ৭১.৬৪। এরপর শ্রীলংকায় গিয়ে তো চূড়ান্ত ব্যর্থ হয়েছেন। ৩ ম্যাচে মোটে করতে পারেন ২১ রান। এবার অনেকদিন পর ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সব হতাশা কাটানোর সুযোগ তার। কিন্তু প্রথম ওয়ানডেতে ফের মলিন তিনি। রানে ভরা উইকেটেও ৪৩ বল খেলে আউট হন ২৪ রান করে।

বল নষ্ট হচ্ছে, আরেক প্রান্তের ব্যাটসম্যানের ওপর চাপ তৈরি হচ্ছে। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের এমন অ্যাপ্রোচ কি টিম ম্যানেজমেন্টের ঠিক করে দেওয়া? সোমবার তামিমকে নিয়ে ঐচ্ছিক অনুশীলনে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এসেছিলেন নিল ম্যাকেঞ্জি।

তার সোজাসাপ্টা জবাব, চালকের ভূমিকা নিতে বলা হয়নি দলের কাউকেই, বরং তামিমকে তার নিজের খেলাটা খেলার লাইসেন্স দিয়ে রেখেছে দল, ‘তামিম জানে তার কি করা দরকার। এটা করে দিলে (ভূমিকা ঠিক করা) উলটো ক্ষতির কারণ। আমাদের কথা হয়েছে। আমরা অনুভব করছি তার আরও দুটো বাউন্ডারি বেশি মারা উচিত।

কোন অ্যাপ্রোচ নিতে হবে সেটাও সেই বুঝবে। কেউ তামিমের হয়ে ব্যাট করবে না। তাকেই তার খেলাটা খেলতে হবে। এটা দ্রম্নত বা ধীর খেলারও ব্যাপার না। আমরা জানি একটা পস্নাটফরমের জন্য তাকে কত দরকার দলে। আগে সে এটা করেছেও। আমরা জানি সে কি করতে পারে। গত বছর বিপিএলের ফাইনালে আমরা তাকে বড় সেঞ্চুরি করতে দেখেছি।

সূত্রঃ যায়যায়দিন

Reply