তারকারা ছাপিয়ে যাচ্ছেন রোনালদোকে!

ইউরোপে এ মুহূর্তে সবচেয়ে ফর্মে থাকা স্ট্রাইকারটির নাম কী? অনেকে বলবেন মেসি, কিংবা রোনালদো।
রবার্ট লেফান্ডোফস্কি, সার্জিও আগুয়েরো কিংবা টিমো ভেরনারদের নামও আসতে পারে। কিন্তু কতজন চিরো ইমোবিলের নাম বলবেন? অথচ সিরি ‘আ’তে খেলা এই তারকা এখন রোনালদোকেই ছাপিয়ে যাচ্ছেন

রিয়াল মাদ্রিদ থেকে গত মৌসুমেই জুভেন্টাসে নাম লিখিয়েছেন পর্তুগিজ তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ক্যারিয়ারে চারবার ইউরোপের সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার পাওয়া রোনালদো ইতালিতে এসে প্রথম মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলদাতা হতে পারেননি। এবার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এবার যদি না পারেন, সেটা অবশ্যই চিরো ইমোবিলের জন্য।

এই চিরো ইমোবিলে? ২৯ বছর বয়সী ইতালিয়ান স্ট্রাইকার তিনি। খেলেন রোনালদোর মতোই ইতালিয়ান লিগে, লাৎসিওর হয়ে।

এই মৌসুমে এর মধ্যেই ২১টি লিগ ম্যাচ খেলে ২৫ গোল করে ফেলেছেন তিনি, রোনালদোর চেয়ে আধ ডজন বেশি। মৌসুম শেষে ইউরোপের সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার পাওয়ার সম্ভাবনাও তারই বেশি সবচেয়ে।

গতকাল এসপিএএলকে ৫-১ গোলে হারিয়েছে লাৎসিও। জোড়া গোল ইমোবিলের। এই নিয়ে মৌসুমে লাৎসিওর ৫২ লিগ গোলের মধ্যেই ২৫টিই করা হয়ে গেল তাঁর, শতকরা হিসেবে যা প্রায় ৫০ শতাংশ।

মৌসুমের প্রথম ২১ ম্যাচ শেষে ২৫ গোল, সিরি ‘আ’ সর্বশেষ এই কৃতিত্ব দেখেছিল সেই ১৯৫৯ সালে। ইন্টার মিলানের ইতালিয়ান স্ট্রাইকার আন্তোনিও ভ্যালেন্তিন অ্যানহেলিলো ১৯৫৯ সালে প্রথম ২১ ম্যাচে ২৫ গোল করেছিলেন।

২০১১ সালে পেসকারার হয়ে নজর কাড়া ইমোবিলে গত দশ বছরে ইতালিয়ান লিগে ১২৩ গোল করেছেন। অধিকাংশই লাৎসিওর হয়ে। রোমের নীল দলটা ছাড়াও খেলেছেন তুরিনো ও জেনোয়ার হয়ে। মাঝে বরুসিয়া ডর্টমুন্ড আর সেভিয়ার হয়ে দুই মৌসুম খেললেও আলো ছড়াতে পারেননি। পরে ২০১৬ সালে নাম লেখান লাৎসিওতে।

ইউরোপের সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় লেফান্ডোফস্কি আর ভেরনারকে পেছনে ফেলেছেন ইমোবিলে। দেখে নেওয়া যাক কার অবস্থান কোথায় :

১। চিরো ইমোবিলে (লাৎসিও) – ২৫ গোল
২। রবার্ট লেফান্ডোফস্কি (বায়ার্ন মিউনিখ) – ২২ গোল
৩। টিমো ভেরনার (আরবি লাইপজিগ) – ২০ গোল
৪। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (জুভেন্টাস) – ১৯ গোল
৫। জেমি ভার্ডি (লেস্টার সিটি) – ১৭ গোল

 

Reply