নরেন্দ্র মোদির আগমন নিয়ে সরকার অবশ্যই চিন্তিত বাংলাদেশ সরকার

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আসন্ন মুজিববর্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমন নিয়ে বাংলাদেশ সরকার অবশ্যই চিন্তিত বলে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন বিশিষ্ট কূটনীতিক বিশ্লেষক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘সময়টি নরেন্দ্র মোদির জন্য উপযুক্ত না। কারণ মোদির রাজনীতির বিষয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও স্পষ্টভাবে সমালোচনা করেছেন। এই রাজনীতি বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ বিশ্বাস করে না। বিশ্বাস করে না ভারতের জনসাধারণও।’

ভারতে বিজেপি সরকারের মুসলিমবিরোধী নীতি, সম্প্রতি দিল্লি দাঙ্গা এবং মুজিববর্ষে বাংলাদেশে মোদির আগমন নিয়ে জাগো নিউজের পক্ষ থেকে জানতে চাওয়া হয় এ বিশ্লেষকের কাছে।

ড. ইমতিয়াজ বলেন, ‘ভারতে মুসলমানরা মারাত্মকভাবে হামলার শিকার হচ্ছেন। এই চিত্র একটি দেশের জন্য শুভ হতে পারে না।

আবার ক্ষতিগ্রস্ত মুসলমানদের পাশে ভারতের সাধারণ মানুষ যেভাবে দাঁড়িয়েছে, সেখানে আশার প্রদীপ দেখতে পাচ্ছি। এটিই মানবতার সৌন্দর্য। উগ্রবাদী বিজেপি সরকার এবং আরএসএস এ সৌন্দর্যের কাছে হেরে যাবে।’

দ্বি-জাতিতত্ত্বের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানের জনক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ এবং ভারতের সরকারপ্রধান নরেন্দ্র মোদির নীতি একই।

উল্টো হলেও দুজনই ধর্মের ভিত্তিতে রাজনীতি করেছেন। অথচ, বাংলাদেশের মানুষ ১৯৭১ সালের এই দ্বি-জাতিতত্ত্বের রাজনীতি ছুড়ে ফেলেছে। ভারতের সাধারণ মানুষই ভরসা। তারা বিজেপি এবং আরএসএস’র রাজনীতির বিরুদ্ধে যতদ্রুত প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারবে, ততই দেশটির মঙ্গল।’

মুজিববর্ষে মোদির আগমন প্রসঙ্গে এ কূটনীতিক বলেন, ‘এমন একটি আয়োজনে ভারতের সরকারপ্রধানের উপস্থিত থাকাটা খুব স্বাভাবিক।

কিন্তু মোদির আগমন নিয়ে মানুষ যেভাবে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন, তাতে সরকারের অস্বস্তি হওয়াটাও খুব স্বাভাবিক। যারা ভারতের সঙ্গে ইতিবাচক সম্পর্কে বিশ্বাসী তারাও ভারতের পরিস্থিতি এবং মোদির আগমন নিয়ে বিবৃতি দিচ্ছেন। মোটকথা, মোদির জন্য সময়টি উপযুক্ত না।’

উল্লেখ্য, ভারতের দিল্লিতে মুসলিমদের ওপর দাঙ্গা হামলার জেরে বাংলাদেশে মোদির আগমন নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে আপত্তি জানানো হয়েছে। মোদিকে বাংলাদেশে ঢুকতে দেয়া হবে না বলেও দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেছে ইসলামি দলগুলো।

এএসএস/এফআর/জেআইএম ৎ – সংগ্রীহিতঃ জাগোনিউজ২৪

Reply